ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয় ?ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়


ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয় ?ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়



অনেকের প্র‍শ্ন ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয় ? ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায় কি?  ডিপ্রেশনের মেডিসিন কিংবা ডিপ্রেশনের চিকিৎসা বলতে কি কিছু আছে?  এই সব কিছুর উওর দিব।ডিপ্রেশন কিংবা বিষন্নতা নিয়ে কিছু কথা  বলব। 

সর্বপ্র‍থম প্র‍শ্ন  ডিপ্রেশন অর্থ কি?

হতাশা,বিষন্নতা।

ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয় :-

যে যাওয়ার সে তো চলে গেল। আমাদের কিছু করার নেই, কিন্তু যেই মানুষগুলো এই মুহূর্তে ডিপ্রেশনকে নিয়ে বেঁচে আছে তাদের কথা কে শুনবে?  তাদের সলিউশন টা কি করে আসবে?

 what is the permanent solution  of depression? 

 temporary solution   না  permanent  solution  চিরদিনের  জন্য Depressed  হব না। permanent  solution  এর জন্য কোন ডিপ্রেশনের মেডিসিন নেই। Permanent solution  আছে inside  you  এবং সেই কথাগুলি আমি আজকেই  বলবো পুরো পোস্টটি  মন দিয়ে পড়বেন  প্লিজ শেষ পর্যন্ত পড়বেন  অনেক হেল্প হবে এই পোস্টটা  পড়ে  তোমাদের।

 what is the permanent solution  of depression? 

যারা ধরো শহরাঞ্চলে থাকে যারা ধরো  বয়সে অনেক  বড়। যাদের ধরো  বলার মত মানুষ আছে তারা না হয় depressed  হলে হেল্প চাইতে পারে বলতে পারে যে আমি খুব ডিপ্রেশনে আছি আমাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে চলো ।কিন্তু এই যে ছোট ছোট ছেলে মেয়ে যাদের  বয়স ধরো   16- 17 বছর বয়স তারাও কিন্তু ডিপ্রেশনে ভোগে।18-  19 বছর বয়সে  ডিপ্র‍েশন অনেক আসে ওরা কাকে বলবে?  

banner

 শহরাঞ্চল   ছেড়ে দিলাম গ্রামাঞ্চল মফস্বলে এমন অনেক জায়গায় রয়েছে যেখানে ছেলেমেয়েরা বলতে পারেনা  because তাদের আশেপাশের মানুষজন অতটা উন্নত নয়।  এটা বোঝার জন্য যে, ডিপ্রেশন একটা রোগ,ডিপ্রেশনের চিকিৎসা  জন্য ডাক্তার দেখাতে হয়।ডিপ্রেশনের মেডিসিন নেই। 

তারা কাকে  বলবে? তাকে কে বুঝবে? 

এমন অনেক সময় থাকে আমাদের আশেপাশে কেউ থাকে না আমাদেরকে শোনার জন্য, তখন কি করব?  বড়দের কথা সেলিব্রিটি ডিপ্রেশন হলে তাকে নিয়ে তো  নিউজ হয়ে যাবে কিন্তু তোমার ডিপ্রেশন নিয়ে তো নিউজ  হবে না। তোমার ডিপ্রেশনে হলে তো সেটা নিয়ে কেউ তো care   করবে না। তুমি কি করবে? আমরা সবসময় দুটো world  কে নিয়ে চলাচল করি একটা হচ্ছে Outer  world  যেটা বাইরের জগত আরেকটা হচ্ছে inner world  যেটা তোমার ভিতরের জগত।

 Outer world  কি করে?

outer world কোন একটি event কে  পারফর্ম করে। 

আর তোমার inner world  কি করে?

 তোমার inner world  ঠিক করে যে, সেই event টার মধ্যে  তুমি আনন্দ পাবে নাকি দুঃখ পাবে।

তার মানে outer world এর  যে কোন event  তোমার decision  ছাড়া শূন্য।  তুমি যদি মনে করো আনন্দ পাবে তাহলে আনন্দ, যদি মনে করো দুঃখ পাবে তাহলেই দুঃখ। তুমি কি দেখছো বাহ কি বুঝছো  সেটা important  না।  important  হচ্ছে তুমি কোন জিনিসটাকে বিশ্বাস করছ। এবং এক্ষেত্রে একটা তোমায় example  দেই, outer world  এর  example বলি,  ধরো একজন মানুষ তোমাকে বারবার ডিস্টার্ব করছে তোমাকে খোঁচা দিচ্ছে তুমি এক জায়গায় বসে আছো  সে তোমায় এসে বারবার খোঁচা দিচ্ছে তুমি কি করবে?  তুমি সেই জায়গাটা  থেকে অন্য জায়গায় চলে যাবে।  outer world এর   problem  solve। 

 কারণ  তুমি অন্য নতুন যেই জায়গায় চলে গেলে সেখানে সেই লোকটা নেই তো, তোমার outer world এর   problem  solve  হয়ে গেল।  outer world এর  problem  থেকে পালিয়ে যাওয়া যায় কিন্তু inner world এর   problem  থেকে পালানো যায় না।

আর এখান থেকে শুরু হয় সমস্ত ডিপ্রেশন অ্যাংজাইটি বিভিন্ন  ধরনের problems ।  Because inner world এর problem তোমার ভিতরে সমস্যা থেকে তুমি পালিয়ে যেতে পারো না।  বাহিরের সমস্যা থেকে তো পালিয়ে যেতে পারো, ভিতরে সমস্যা থেকে কিভাবে পালাবে? 

এবার একটা ভিতরের সমস্যার example দেই  ধরো তোমার  খুব মন খারাপ  ধরো তুমি পরীক্ষায় ফেল করেছো,  ধরো তোমার অফিস থেকে তোমায় ছাটাই করে দিয়েছে,ধরো ব্যবসায়  প্রচুর লস খেয়েছো, কিংবা ধরো  তোমার ব্রেকআপ হয়ে গেছে যে কোন একটা, সবকটা একটা নেগেটিভ ইভেন্ট। এইবার সেই দিনই তোমার বাড়িতে জন লোক এসছে তোমার বার্থডে সেলিব্রেট করবে বলে।

তোমার এমনি একদিকে এত মন খারাপ বাইরে 100 জন লোক এসছে তোমার বার্থডে সেলিব্রেট করবে বলে। তুমি বলতো তুমি কি আনন্দ পাবে? পাবে না।  তোমার মুখে হাসি আসবে না। যতই সে তোমার সাথে কথা বলুক না কেন তোমার কিছুতেই মনে শান্তি আসবে না। কারণ তোমার মনের ভিতর তোমার inner world  সমস্যাটা ক্রমাগত বেড়েই  চলেছে ক্রমাগত বেড়েই চলেছে, তুমি হাসছো কিন্তু সে হাসিটা ফেক।সে হাসিটা লোকদেখানো হাসি। তুমি মন থেকে হাসছো না। এই inner world  সমস্যা থেকে পালিয়ে যাওয়া যায়  না। দেখ এই outer world কিছু নেই। There is noting in the outer world.এগুলো মেটারিয়াল স্টীক জিনিস। আনন্দ দুঃখ আরাম যাই বলো এগুলো তোমার ভিতরে আছে। Everything is inside you. সব কিছু তোমার ভিতরে আছে।


ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয় ?ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়


তুমি আনন্দ পাওয়ার জন্য সবসময় ভাবো যে বাইরের কাউকে বা কোন একটা জিনিসকে প্রয়োজন তোমাকে আনন্দ দেওয়ার জন্য। But this is not right. তোমাকে আনন্দ দেওয়ার জন্য বাইরের কোন জিনিসের দরকার নেই। তুমি একটা সাময়িক আনন্দ পাওয়ার জন্য youtube-এ ভিডিও দেখো, facebook-এ বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেও কিংবা   তুমি একটা সাময়িক আনন্দ পাওয়ার জন্য বাইরে থেকে বন্ধুদের কে ডাকো কিছুক্ষনের জন্য কিন্তু সেটা তো সাময়িক কিছুক্ষণের জন্য।

 কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছো  permanent আনন্দটা কোথায়?   

permanent  দুঃখটা কোন জায়গায়? 

যেটাকে আমরা solve  করতে পারব। permanent  যেই জিনিস গুলো আছে সেগুলো সবকটা তোমার ভিতরে আছে। আর বাইরে যেগুলো আছে সেগুলো সব কটা temporary  কিছুক্ষণের জন্য । তোমাকে যদি permanent  solution  এর দিকে যেতে হয় তাহলে তোমাকে একটা permanent  decision  এর দিকে যেতে হবে।  

আর সে  permanent decision টা কি? 

আর permanent decision টা হলো  প্রথমেই এটা ঠিক করা যে আমি নিজের হ্যাপিনেস এর জন্য বাইরের কোনো কিছুর উপর ডিপেন্ডেন্ট নই। ডিপেন্ড করছে তুমি কিভাবে দেখছো সেই matter  টা কে  ।  কোন একটা problem এলো তুমি কি পালিয়ে যেতে চাও?  নাকি সেটা তুমি ফিক্স করতে চাও? 

যদি ফিক্স  করতে চাও তাহলে তুমি জিতে গেলে যেই মুহুর্তে তুমি decision  নিলে যে আমি এটাকে ফিক্স  করবো সেই মুহূর্তে তুমি জিতে গেলে। সেই মুহূর্তে তুমি 50% জিতে গেলে। বাকিটা তোমার কাজ। আমি এতক্ষণ যে কথাগুলো বললাম সেগুলো একটু মন দিয়ে বোঝার চেষ্টা করো, মাথায়  ঢুকানোর চেষ্টা কর। সব থেকে ভালো তো এটাই হয় ডিপ্রেশনকে আসতে না দেওয়া।  বিশ্বাস করো নিজের উপর বিশ্বাস করো যে you can fix any problem  of your life. Because এটা তোমার life     তুমি পারবে তোমার সব  problem  কে fix  করতে।

বাইরের কেউ পারবে না। তুমি পারবে,তোমার life এর problem কে fix করতে। So আজ থেকে  নিজের উপর বিশ্বাস করতে শুরু করো যা হচ্ছে  পৃথিবীতে সব কিছু temporary , তোমার হ্যাপিনেস, তোমার দুঃখ, সবকিছু তোমার inner world-এ  রয়েছে।  যা তোমায় solve  করতে হবে সব তোমার ভিতরের জীবন থেকে solve করতে হবে and you can!  you can fix the problem. You can solve any kind of  problem  of your life.  ওকে বুঝলে?

 So সবাই কমেন্ট করো যে বুঝেছো কিনা। সবাই এটা কমেন্ট করো,আজ থেকে তোমরা যেকোন সমস্যা লাইফে ফিক্স করবে। পালিয়ে যাবে না, পালিয়ে যাবে না।

 আজকের লেখাটি  যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই  বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে দেবে, তার কারণ আশেপাশে অনেক বন্ধু রয়েছে হয়তো  ডিপ্রেশনে আছে তাদেরকে আমার  কথা গুলো মনে হয়  জানানো  জরুরী।ডিপ্রেশন স্ট্যাটাস, শেয়ার করে দিও তাদের সাথে বন্ধুদের সাথে আর কমেন্ট করে আমাকে অবশ্যই জানাবে  যে এখন  থেকে পালিয়ে যাবে নাকি আজ থেকে সবাই fix করবে problem  কে। 


ভুতের গল্প পড়ুনঃ-


বাস ড্রাইভারের ভয়ংকর ভুতের গল্প সত্য ঘটনা |২০২২|


মাদ্রাসা ছাত্রের ভয়ংকর ভুতের গল্প সত্য ঘটনা |২০২২|


ভুতের গল্পের ওয়েবসাইটঃ- Bhoot club


স্কুল ছাত্রীর ভয়ংকর ভুতের গল্প |২০২২| 




Post a Comment

Previous Post Next Post